Header ad

না খেয়ে থাকব, তবু মিথ্যা বলব না

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাবেক সভাপতি-অভিনেতা আহমেদ শরীফ ও তার স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য ৩৫ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত বৃহস্পতিবার তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ওই অনুদানের চেক গ্রহণ করেন। এরপর বিভিন্ন মহল থেকে নানা আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।অনেকেই জানতে চেয়েছেন, বরেণ্য এই অভিনেতা কোন রোগে ভুগছেন? অনেকের অভিযোগ, এই অভিনেতা একটা সময় বিএনপির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুবিদ্বেষী। এ নিয়ে ফেসবুকেও চলছে বিতর্ক।ঘটনা সত্যতা জানতে সোমবার পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় এই অভিনেতার সঙ্গে। জানতে চাওয়া হয়, তার অসুখের কথা।উত্তরে আহমেদ শরীফ বলেন, ‘বার্ধক্যজনিত কারণে আমি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। ঠিক মতো হাঁটাচলা করতে পারি না। ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, প্রস্টেটের অসুবিধাসহ নানা অসুখে ভুগছি। কিছুদিন আগে, পিত্তথলিতে পাথর ধরা পড়ার কারণে অস্ত্রোপচারও করেছি। আমি ঠিকমতো হাটতে পারি না। অনেক আগে শুটিং করতে গিয়ে, পড়ে পা ভেঙে গিয়েছিল। সেসময় অস্ত্রোপচার করে পায়ে রড বসানো হয়েছে। ১৮ বছর ধরে ডায়াবেটিসে ভুগছি।’আহমেদ শরীফ বলেন, ‘আমার বয়স এখন ৭৪ বছর। এই বয়সে একজন মানুষ কতটুকুই সুস্থ থাকে। শরীরও এখন আগের মতো সাড়া দেয় না। দিনের বেশির ভাগ সময় ঘরে শুয়ে-বসে কাটাতে হয়। চিকিৎসার অভাবে আমার স্ত্রীর চোখটাও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ওর চোখের রেটিনায় সমস্যা। আমার একটি মেয়ে আফিয়া মোবাসসিরা মৌরি। পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে দিনগুলো কাটছে আমার।’কথা উঠেছে, গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর থেকে অনুদানের চেক নিয়ে ওই দিন রাতেই চলচ্চিত্র প্রযোজক শফি বিক্রমপুরীর ৫০তম বিয়েবার্ষিকীর আনন্দ অনুষ্ঠানে যোগ দেন আহমেদ শরীফ। ওই অনুষ্ঠানে তিনি মেতে ছিলেন আনন্দ-আড্ডায়, এ নিয়েও ফেসবুকে চলছে তুমুল সমালোচনা।এ প্রসঙ্গে আহমেদ শরীফ বলেন, ‘চলচ্চিত্র প্রযোজক শফি বিক্রমপুরীর সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের সম্পর্ক। তার অনেক ছবিতে আমি অভিনয় করেছি। তাদের বিয়েবার্ষিকী অনুষ্ঠানে গিয়েছি, এটা সত্য। কিন্তু আনন্দ-আড্ডায় তো আর মাতিনি। উপস্থিত অতিথিরা নিশ্চয়ই দেখেছেন, আমি সেখানেও অসুস্থবোধ করছিলাম। তাই দেরি না করে বাসায় চলে এসেছি।’

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *