Header ad

দ্রুতগতির গাড়ি তৈরি করে গিনেস স্বীকৃতি পেল বাংলাদেশি মোহাইমেনুলদের টিম

প্রতি কিলোওয়াট-ঘণ্টায় ৭৯৭ মাইল পাড়ি দিয়ে গিনেস বিশ্ব রেকর্ড ভেঙেছে ডিউক ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের তৈরি করা একটি বৈদ্যুতিক গাড়ি। গেল জুলাইয়ের ৯ তারিখে গিনেস নতুন রেকর্ডটি নিশ্চিত করে।

গাড়ির এই সফল রান সম্পন্ন হয় বেনসন, এনসি’র গ্যালট মোটরস্পোর্টস-এ। টীম মিউনিখের টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটির টিইউ-ফাস্টকে পরাজিত করে জয়ী হয় ডিউকের টিম। এই টিমের সদস্য সংখ্যা মোট সতের জন। এর মধ্যে আছেন বাংলাদেশের ছেলে ও ডিউক ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী মোহাইমেনুল ইসলাম।

ডিউকের এই টিমে ছিলেন ইলেকট্রিক ভেহিকেলস প্রেসিডেন্ট গ্যারী চ্যান ও শমিক ভার্মা, পাশাপাশি সদ্য গ্রাজুয়েট প্যাট্রিক গ্রাডি ও অনিরুদ্ধ মারেল্লাপুডি এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র ইয়ুকাই কিয়ান ও ওলগা সুচানকোভার।
গাড়ি নৈপুণ্যের (ভেহিকেল ইফিশিয়েন্সি) জন্য এটা হচ্ছে দ্বিতীয় গিনেস বিশ্ব রেকর্ড। এই টিমটি এর আগেও একটি রেকর্ড ভেঙেছিল। গত জুলাইয়ে ম্যাক্সওয়েল নামে একটি হাইড্রোজেন ফুয়েল সেল গাড়ি তৈরির মাধ্যমে ছাত্রদের পরিচালিত দল ‘ডিউক ইলেকট্রিক ভেহিক্যাল ক্লাব’-ডিইভি ফুয়েল এফিসিয়েন্সির জন্য নতুন রেকর্ড অর্জন করে।

ওই বছর গাড়িটি সোনোমায় শেল ইকো-ম্যারাথন আমেরিকাস কমপিটিশন জিতে নেয় এবং পাশাপাশি এর অনন্য ফুয়েল সেল ডিজাইনের জন্য অর্জন করে টেকনিক্যাল ইন্নোভেশন পুরষ্কার।

ইলেকট্রিক্যাল এন্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র চেন উল্লেখ করেন, যখন হাইড্রোজেন ফুয়েল সেল সিস্টেমগুলো খুঁতখুঁতে ভাব তৈরি করে তখন ইলেকট্রিক ব্যাটারি টেকনোলজি পরীক্ষিত, বিশ্বস্ত ও প্রত্যাশিত হয়। এ কারণেই দলটি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে গাড়িটির এরোডাইনামিক্স সমৃদ্ধ করার কাজে মনোযোগ দিতে বিশেষভাবে সক্ষম হয়েছিল। এরাডাইনামিক্স পারফরম্যান্সের ৩৯ শতাংশ উন্নতি সাধন করে দলটি নতুন বিশ্ব রেকর্ড গড়তে সক্ষম হয়।

নতুন গাড়িটির ডিজাইন করতে আলটেয়ার নামে একটি গ্লোবাল আইটি ভিত্তিক কোম্পানির কম্পুটেশনাল ফ্লুইড ইঞ্জিনিয়ারদের সঙ্গে কিয়ানের সাপ্তাহিক আলোচনাগুলো বেশ কাজে দিয়েছে।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *