Header ad

জেনে নিন কাজল দিয়ে চোখ আকর্ষণীয় করার কৌশল

‘চোখ যে মনের কথা বলে…’ জনপ্রিয় এই গানটি হয়তো কোনও এক রমনীর কাজল কালো চোখ দেখেই রচিত হয়েছিল। কাজল নারীর সাজসজ্জার জন্য যেন এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। শুধু মাত্র একটু কাজলের ছোঁয়ায় বাঙালি নারীরা হয়ে ওঠেন আরও মায়াবী। কাজল এমনই এক প্রসাধনী যা বাঙালি ললনাদের মন জয় করে আজ বিদেশিদেরও মনের দুয়ারে স্থান করে নিয়েছে। তবে কাজল সঠিকভাবে ব্যবহার করতে না পারায় সৌন্দর্য্যের যেমন হানি ঘটে, তেমনি সম্মানেরও ক্ষতি হয়।

চলুন জেনে নিই সঠিক উপায়ে কাজল ব্যবহারের কার্যকরী কিছু পরামর্শ, বিষয়গুলো মাথায় রেখে কাজলের ব্যবহার করে আপনি হয়ে উঠতে পারেন আরও আকর্ষণীয়।

১. চোখ পরিষ্কার করে নিন : প্রথমত কাজল লাগানোর আগে চোখের তলা যেন পরিষ্কার এবং শুকনো থাকে এটা লক্ষ্য রাখবেন। মেক আপ শুরু করার আগে চোখ ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে‚ শুকনো কাপড় দিয়ে মুছে নিন।

২. চোখে পাউডার লাগিয়ে নিন : কাজল পরার আগে চোখের পাতায়, চোখের তলায় এবং কোণে পাউডার লাগিয়ে নিন। কাজল লাগানো হয়ে গেলে অতিরিক্ত পাউডার ব্রাশ দিয়ে মুছে নিন।

৩. চোখের পাতা আঙুল দিয়ে টেনে নিন: কাজল লাগানোর সময় আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আলতো করে চোখের নীচের পাতা আঙুল দিয়ে টেনে নিন। এবার ওপর দিকে তাকান। এবার কাজল লাগান। জোরে ঘষবেন না। একবারে কাজলের আঁচড় কাটুন। চোখের কোণার দিকে মোটা করে কাজল না লাগালেই ভালো।

৪. কাজল ঠান্ডা করে নিন : কাজল লাগানোর আগে তা ঘন্টাখানেক ফ্রিজের ঠাণ্ডায় রেখে দিন।

৫. সঙ্গে ফেস পাউডার রাখুন : অয়েলি স্কিন হলে চোখের চারপাশে তেল জমা হয় এবং কাজল লাগানোর কিছুক্ষণের মধ্যেই ছড়িয়ে যায়। তাই সঙ্গে ফেস পাউডার রাখুন এবং মাঝে মাঝে তা লাগিয়ে নিন।

৬. ভাল কাজল ব্যবহার করুন : সব সময় ভালো কোয়ালিটির কাজল ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। আজকাল বাজারে বহু স্মাজ ফ্রি কাজল পাওয়া যায় পারলে সেই ধরনের কাজল কিনুন। কাজল কেনার আগে ভাল করে এর লেভেল লক্ষ্য করুন। “No smudge” অথবা “Long- lasting” কথা লেখা কাজল ক্রয় করুন। পেন্সিল কাজল ব্যবহার করলে‚ লাগানোর আগে তা শার্পনার দিয়ে ছুঁচোলো করে নিন।

৭. ওয়াটারলাইনে কাজল নয় : কেউ কেউ কাজল চোখের ওয়াটার লাইনে (চোখের নিচের ভিতর দিকে)ব্যবহার করে থাকেন।এটি চোখের ভিতর চুলকানি সৃষ্টি করে ইনফেকশন সৃষ্টি করতে পারে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে কাজল তুলতে ভুলে যাবেন না। এটি চোখের নিচে কালো দাগ সৃষ্টি করে থাকে।

৮. অন্য কোন প্রডাক্টের সাথে ব্যবহার : কাজল লাগানোর পর পাতলা করে আইলাইনার লাগিয়ে নিন চোখের বাইরের অংশে। এটি শুকিয়ে গেলে মাশকারা ব্যবহার করুন। এতে করে কাজল আর ছড়াবে না। এছাড়া চোখের কোণে হালকা করে কাজল লাগিয়ে নিন। চোখের মাঝ থেকে গাঢ় করে এনে কোণে হালকা করে লাগিয়ে নিন। এতে কাজল ছড়িয়ে পড়বে না।

৯. গাঢ় আইশ্যাডো ব্যবহার: আপনি হয়তো লক্ষ্য করেছেন কাজল ছড়িয়ে গেলে তা ডার্ক সার্কেলের মত চোখের চারপাশ কালো করে দেয়। তাই কাজল দেওয়ার পর যদি চোখের পাতার নিচে অল্প করে গাঢ় কোন আইশ্যাডো ব্যবহার করা হয়,তাহলে কাজল ছড়ানো দূর করে চোখে একটি স্মোকি একটি লুক এনে দিয়ে থাকে।

বাজারে এখন বিভিন্ন কোম্পানির কাজলের ছড়াছড়ি। বিশ্ব সেরা ব্র্যান্ড থেকে শুরু করে নাম না জানা হাজার হাজার কোম্পানির কাজলে বাজার সয়লাব হয়ে আছে। কিন্তু আমরা জানি না এই কাজলে কি মেশানো হচ্ছে বা কতটা নিরাপদ আমাদের জন্য। যেহেতু কাজল সরাসরি আমাদের চোখের সংস্পর্শে যাচ্ছে তাই সর্বপ্রথম এ ব্যাপারে আমাদের সচেতন হতে হবে ।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *