Header ad

নতুন চাকরিতে যা মোটেও করবেন না

নতুন চাকরিতে যা মোটেও করবেন না

নামকরা কোন কোম্পানি চাকরি হলো। বেতনও মাশআল্লাহ বেশ উচ্চ। চাকরিতে যোগদান করলেন, কয়েকদিন বেশ ভালো কাটলো। কিন্তু দেখলেন কিছু দিনের মধ্যেই চাকরিটি আপনার জন্য অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন আপনি আপসোস করছেন।

তাই নতুন চাকরিপ্রাপ্তদের বেশ কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। কেননা, চাকরি পাওয়ার কয়েক সপ্তাহ বা কিছুদিন আপনার আচরণ বেশ গুরুত্বপূর্ণ। যা আপনার ক্যারিয়ার এগিয়ে নিতে সাহায্য করতে পারে। চলুন দেখে নিই নতুন নতুন চাকরিতে নিয়োগ পাওয়ার পর যে কাজগুলো সতর্কতার সাথে পরিহার করতে হবে।

পুরনো চাকরির মতো কাজ
আপনি নতুন একটি চাকরিতে গিয়ে যদি পুরনো কর্মস্থলের মতো করে কাজ করতে থাকেন তাহলে তা মোটেও প্রশংসনীয় হবে না। নতুন কর্মস্থলে গিয়ে নতুন নিয়োগকর্তার মত অনুযায়ী কাজ করাই হবে সঠিক সিদ্ধান্ত। এক্ষেত্রে পুরনো চাকরির দোহাই দেওয়া ঠিক নয়।

অফিস কালচার উপেক্ষা করা
কিভাবে কাজ করতে হবে, সহকর্মী ও বসের সাথে কিভাবে কথা বলবেন, কেমন পোশাক পড়তে হবে, কাজের ধরন এসব। এগুলোর সাথে বেশিরভাগ নতুন চাকরিজীবীই প্রথম দিকে খাপ খাওয়াতে পারেন না। একটি কোম্পানির কালচার প্রথমে সহজবোধ্য নাও হতে পারে। আর তাই সবকিছু পর্যবেক্ষণ করুন। প্রয়োজনে কমপক্ষে আধা ঘণ্টা আগে অফিসে যান। বের হন দেরি করে। অতিরিক্ত সময়ে দেখুন-কিভাবে অন্য সহকর্মীরা একে অন্যের সাথে আচরণ করেন। কখন, কোথায় গিয়ে সবাই চা খান, লাঞ্চ করেন। আর কিভাবেই দিনের কাজ শেষ করেন তারা।

নতুন কর্মস্থলের সমালোচনা
প্রত্যেক কর্মস্থলই ভিন্ন। এক্ষেত্রে নতুন কর্মস্থলে গিয়ে সেখানকার কর্মী বা কাজের পরিবেশ নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য বা সমালোচনা কারোই পছন্দ হবে না। এতে কর্মস্থলে সমস্যাও হতে পারে। তাই এসব বিষয় এড়িয়ে চলতে হবে।

আত্মকেন্দ্রিক মনোভাব
নতুন হিসেবে প্রথম দিকে অফিসে এক ধরনের আত্মকেন্দ্রিক মনোভাব দেখা যেতে পারে আপনার মধ্যে। সময় নিয়ে কোম্পানির পরিবেশ, কাজের ধরন বুঝতে চেষ্টা করুন। উদ্ধতপনার উল্টোদিকেই থাকে ভয়। হয়তো নতুন পরিবেশে নিজেকে খাপ খাওয়াতে না পারার ভয়ে উদ্ধত আচরণ করছেন আপনি। গুটিয়ে রাখছেন নিজেকে। এতে অফিসে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে আপনার অবস্থান নড়বড়ে হয়ে যেতে পারে। সাবলীল ভাবে অন্য সহকর্মীদের সাথে মিশুন।

কাজের ধরন বুঝতে না পারা
অফিস আপনার কাছ থেকে কি কাজ আশা করছে, তা যদি না ই বুঝতে পারেন, তাহলে কাজ করাই কঠিন হয়ে পড়বে। দায়িত্বগুলো কেমন হবে, কোন কাজগুলো আগে করতে হবে এসব কিছু জেনে নিন উর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছ থেকে।

ভুল স্বীকার না করা
সবাই ভুল করে। এক্ষেত্রে নতুন চাকরিতে যারা নিয়োগ পায়, তাদের ভুলের পরিমাণ আরো বেশি থাকে। তবে নতুন চাকরিজীবীদের অনেকেই নিজের ভুল স্বীকার করতে চান না। এটা ভাববেন না যে আপনাকে কেউ দেখছে না। বরং নতুনদের অন্য সহকর্মীরা খুব খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখেন। ভুল ধরার চেষ্টা করেন বেশি। তাই পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হাসিমুখে ও বিনয়ের সাথে নিজের ভুল ত্রুটিগুলো স্বীকার করুন। তারপর সেগুলো শুধরে নিয়ে এগিয়ে চলুন।

মুন্সিয়ানা দেখানো
নতুন চাকরিজীবীদের জন্য আরেকটি মারাত্মক ভুল হলো মুন্সিয়ানা দেখানো। নিজেকে প্রমাণের জন্য মরিয়া হয়ে আপনি হয়তো কোনো কাজের ধরন নতুনভাবে করার ব্যাপারে সিনিয়রদের পরামর্শ দিয়ে বসলেন। এটি ভালো ফল আনবে না আপনার জন্য। কথা বলার আগে অফিসের প্রচলিত নিয়ম কানুন ও কাজের প্রকৃতি সব ভালো করে জেনে নিন। এরপর আপনি যুক্তির মাধ্যমে নিজের মত প্রকাশ করতে পারবেন।

নিজের কাজের মূল্যায়ন না করা
নতুন যারা কাজ করেন, তাদের জন্য অফিসে প্রথম ছয় মাস মূলত অগ্নি পরীক্ষা দেয়ার সময়। এ সময়ে নিজেকে প্রমাণ করার জন্য সব কিছু করতে হবে আপনাকে। তবে নিজের কাজের মূল্যায়ন করতে ছয় মাস বা এক বছর যদি আপনি অপেক্ষা করেন, তাহলে ভুল করবেন। এ সময়ে আপনার পাশাপাশি, আপনার টিম এমনকি কোম্পানিও পিছিয়ে পড়তে পারে। এক্ষেত্রে আপনার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে এক মাস পরই কাজের মূল্যায়নের জন্য অনুরোধ করতে পারেন। কোন কাজগুলো ভালো করেছেন, কোনগুলো ঠিক মতো করতে পারেননি এবং কিভাবে আপনার ভুলগুলো শুধরাতে পারেন সেসব বিষয়ে তার কাছ থেকে পরামর্শ নিন।

আপনার দোষকে গুণে রূপান্তর করুন
নতুন চাকরি শুরু করা কখনোই সহজ কাজ না। যদি মনে হয় উপরের দোষগুলোর একটি বা কয়েকটি আপনার মাধ্যমে সংঘটিত হচ্ছে, তাহলে সতর্ক হোন এখনই। আপনার সম্ভাবনাময়ী মেধাকে সঠিকভাবে কাজে লাগান। মনে রাখতে হবে নতুন অফিসে কেউ আপনাকে চেনে না। তাই প্রথম দিনেই নিজের অবস্থান দৃঢ় করতে ও আপনার উপস্থিতি জোরালো করতে সচেষ্ট হোন।

চাকরি নিয়ে হতাশা প্রকাশ
আপনি যদি নতুন চাকরিতে ঢুকেই কোনো একটি বিষয়ে বিরক্ত হয়ে সে চাকরি নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন তাহলে তা কর্তৃপক্ষের বিরক্তির কারণ হতে পারে। এক্ষেত্রে কিছুটা ধৈর্য ধরাই বুদ্ধিমানের কাজ।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *