Header ad

মহাকাশচারীকে ব্র্যাড পিটের প্রশ্ন

ভারতের চন্দ্রযানের দিকে শুধু ভারতীয়রা নন, তাকিয়ে ছিল গোটা পৃথিবীই। ইসরো-র এই প্রজেক্ট নিয়ে যেমন মাতামাতি ছিল, তেমনই অসাফল্য নিয়েও চর্চা বিস্তর, এমনকী সেই তালিকায় হলিউডের তারকারাও রয়েছেন। সম্প্রতি ব্র্যাড পিট আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে ফোন করে খোঁজখবর নিয়েছেন চন্দ্রযানের।

ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন বা আইএসএস-এ বসবাসকারী মার্কিন মহাকাশচারী নিক হেগ-এর সঙ্গে একটি কথোপকথন হয়েছে সম্প্রতি ব্র্যাড পিটের। তিনি ভিডিও চ্যাট মারফত যোগাযোগ করেন স্পেশ স্টেশনের সঙ্গে। আইএসএস-এর মহাকাশচারীকে মজা করে জিজ্ঞাসা করেন তিনি, মহাকাশচারীর ভূমিকায় ‘গ্র্যাভিটি’ ছবিতে, কাকে বেশি ভালো লেগেছিল নিকের, ব্র্যাড পিটকে নাকি জর্জ ক্লুনি-কে। নিক বলেন ব্র্যাড পিটকেই বেশি ভালো লেগেছিল।

আগামী ২০ সেপ্টেম্বর মুক্তি পেতে চলেছে ব্র্যাড পিট-অভিনীত ছবি অ্যাড অস্ত্র। সেই ছবির প্রচার উপলক্ষেই নাসা দফতরে গিয়েছিলেন ব্র্যাড পিট। নাসা-র ওয়াশিংটন হেডকোয়ার্টার থেকেই তার সঙ্গে আইএসএস-এর মহাকাশচারীদের সঙ্গে কানেক্ট করিয়ে দেওয়া হয়।

মহাকাশচারীরা আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে কীভাবে থাকেন, তাদের কী কী সুবিধা-অসুবিধা সে সব নিয়ে কথা হতে হতেই একবার জিজ্ঞাসা করেন ব্র্যাড পিট যে নিক হেগ কি ভারতের মুন ল্যান্ডারকে দেখতে পাচ্ছেন? এই প্রশ্নের উত্তরে নিক জানিয়েছেন তার চোখে পড়ছে না। মোট ২০ মিনিট স্প্লিট স্ক্রিন ভিডিও চ্যাটে মহাকাশচারীদের সঙ্গে গল্প করেন ব্র্যাড পিট।

বিগত ২৬ জুলাই পৃথিবী থেকে চাঁদের উদ্দেশে রওনা হয় ভারতের চন্দ্রযান ২। ইসরো-র এই প্রজেক্টটি নিয়ে সারা পৃথিবীর বৈজ্ঞানিকেরাই উচ্ছ্বসিত ছিলেন। কিন্তু চাঁদের মাটিতে নামার ২ কিলোমিটার আগে হঠাৎই হারিয়ে যায় মহাকাশযান। তার পরে মুন অরবিটার জানায় যে চন্দ্রযান রয়েছে চাঁদের মাটিতেই কিন্তু পৃথিবী থেকে কোনওভাবেই তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *