Header ad

কণিকার বিরুদ্ধে হতে পারে খুনের মামলা

বলিউড গায়িকা কণিকা কাপুরের শরীরে পাওয়া গিয়েছে কোভিড ১৯। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি। বিদেশ থেকে ফিরে কোয়ারেন্টাইনে না গিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পার্টি করেছেন তিনি। আর তার জন্যই সেই পার্টি ও জমায়েতের মানুষের চিন্তা বেড়েছে।
উত্তরপ্রদেশ সরকারও এই কারণেই কণিকার উপরে বেজায় চটে রয়েছেন। এমনকী গায়িকার বিরুদ্ধে খুনের মামলাও হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, লাখনৌ-এর যে জায়গাগুলিতে কণিকা পার্টি করেছেন ও থেকেছেন সেখানে যদি কারও করোনার জেরে মৃত্যু হয়, তা হলে গায়িকার বিরুদ্ধে খুনের মামলাও হতে পারে।

এই মুহূর্তে তিনি সঞ্জয় গান্ধী পিজিআইএমএস-এর আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হাসপাতালে থেকেই হাসপাতালের পরিষেবা নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলেছেন গায়িকা। আর তাই এবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কণিকাকে তারকা সুলভ মেজাজ না দেখিয়ে সহযোগিতা করার জন্য বলেছে।

সঞ্জয় গান্ধী পিজিআইএমএস-এর ডিরেক্টর আরকে ধিমান এক সংবাদমাধ্যমের কাছে বলেছেন, হাসপাতালে কণিকা কাপুরকে সবচেয়ে ভালো পরিষেবা দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।

কনিকা বলছেন, “আমি দশ দিন আগে ফিরি। তখন এয়ারপোর্টে স্ক্যানিংয়ের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয় এবং আমি বাড়ি চলে আসি। কিন্তু বিগত চার দিন ধরে আমি ফ্লু এর উপসর্গ লক্ষ্য করছিলাম। এরপরে পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যায় আমার শরীরে পজিটিভ কোভিড ১৯ রয়েছে।

এইরকম অবস্থায় আমি বলবো সবাইকে সেলফ আইসোলেশনে থাকতে এবং কোনও রকমের উপসর্গ দেখা গেলেই তা পরীক্ষা করতে।

পুলিশ সূত্রে খবর, গত ১১ মার্চ লখনউ আসেন তিনি। তখনই তাকে কোয়ারেন্টাইনে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু সেই সমস্ত তোয়াক্কা না করে উনি বেশ কয়েকটি সামাজিক জমায়েতে উপস্থিত ছিলেন। শহরের তাজ মহল হোটেলেও ছিলেন তিনি।

এদিকে হাসপাতালে সবরকমের সুবিধা পেয়েও খুশি নন কণিকা কাপুর। লাখনৌ হাসপাতালে থাকাকালীন তার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা করা হয়েছে, তা সত্ত্বেও তিনি চিকিৎসক এবং চিকিৎসা কর্মীদের কোনওভাবে সাহায্য করছেন না বলেও সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের ডিরেক্টর অভিযোগ করেন।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *